বিমূর্ত এই রাত্রী আমার

আমার অনেক প্রিয় একটি গান। গানটা প্রথম কবে শুনেছি এটা বলতে পারব না যেমন ভাবে আমি বলতে পারিনা আমি প্রথম কবে গান গাওয়া শুরু করেছি। অবসরে, ক্লান্তিতে, ফুর্তিতে আমি গান গাই। গান গাই যখন কষ্টে থাকি, যখন স্বপ্ন দেখি। আসলে আমার সময়গুলো গানময়। গানে গানে কাটে সারাসময়। এখন পর্যন্ত যে গানগুলি আমি সর্বাধিকবার শুনেছি এ’টি তাদের একটি। গানটির গীতিকার কে আমি জানি না তবে সুরকার ভূপেন হাজারিকা (সম্ভবত)। গানটির দু’টা ভার্সন আছে। একটি ভূপেন হাজারিকার গাওয়া অন্যটি আবিদা সুলতানার (সঞ্চারি অংশটুকু)। আমি দুটি ভার্সন শুনে গানটি এখানে পোস্ট করলাম। অনেকেই হয়তো খুঁজে থাকবেন।

আমার এক বন্ধুর এই গানটি অনেক প্রিয়। এই গানের কথা উঠলেই ও বলত এটার চরম একটা ভিডিও বানাবে। আমি হাসতাম। আমার বন্ধুটি কিছুদিন আগে বিয়ে করেছে। তার রাত্রিগুলোন বিমূর্ত হয়ে থাক সারা জীবন। এইতো জীবনের গান! দিহান এই গানটা তোমার জন্য।

মূল অসমীয়া কথা ও সুর: ভূপেন হাজারিকা
বাংলা অনুবাদ: শিব্‌দাস বন্দোপাধ্যায়
কন্ঠ: আবিদা সুলতানা
ছবি: সীমানা পেরিয়ে

বিমূর্ত এই রাত্রী আমার,
মৌনতার সুতোয় বোনা
একটি রঙিন চাদর;
সেই চাদরের ভাজে ভাজে
নিশ্বাসেরি ছোঁয়া
আছে ভালোবাসা আদর।

কামনার গোলাপ রাঙা
সুন্দরী এই রাত্রীতে
নিরব মনের বরষা
আনে শ্রাবন ভাদর
সেই বরষার ঝড়ঝড়
নিশ্বাসের ছোঁয়া
আর ভালোবাসা আদর।

ঝরে পরে ফুলের মতোন
মিষ্টি কথার প্রতিধ্বনি
ঝরায় আতর
যেন ঝরায় আতর
পরিধিবিহীন সঙ্গম
মুখে নির্মল অধর
কম্পন কাতর;
নিয়ম ভাঙার নিয়মে যে
থাকনা বাঁধার পাথর
কোমল আঘাত প্রতি আঘাত
রাত্রী নিথর কাতর।

দূরের আর্তনাদের নদীর
ক্রন্দন কোন ঘাটের
ভ্রক্ষেপ নেই পেয়েছি আমি
আলিঙ্গনের সাগর
সেই সাগরের ছ্রোতে আছে
নিশ্বাসেরি ছোঁয়া
আর ভালোবাসা আদর।

আমি গানকে পাই না গান আমাকে?

যেকথা বলেছি

তুমি কী শুনেছ?

শুনে কী স্বপ্ন সুতোয় দি বুনেছ?

কথা কী শুনেছ?

সেদিন আকাশটা ছিল খুব কুয়াশা মাখা

সেদিন আকাশ ছিল জোৎস্না পাওয়া

হাতের পরশে কি কথা বুঝেছ?

মনে কী কিছুই আজ রেখেছ?

কথা কী শুনেছ?

<<এই হচ্ছে আজকের গানের কথা। হুট করে একটা সুর মাথায় এল সাথে সাথে এই কথাগুলোন বসিয়ে দিলাম। হয়ে গেল গান। অনেক দিন পরে আবার এই চর্চা। আমার মনে হয় পাপমোচন পর্ব চলছে। লিখতে শুরু করলাম। উদ্দেশ্যহীন লেখালিখি।

তবে ইদানিং ছবি তুলতে পারছি না। ইচ্ছেও হচ্ছে না। এটা খারাপ না ভাল জানি না। তবে ইচ্ছার বিরুদ্ধে কিছু না করাই ভালো। তাই ভাবছি ছবি তুলব না। তবে এবার ঈদে বাড়িতে গিয়ে কিছু ছবি তুলেছি, একটা পোস্ট করে দিচ্ছি।

My Home

কবে যাব বাড়িরে, আহারে… 🙂